গল্পের বাঘ ( রম্যরচনা)

  #গল্পের_বাঘ               এঁদো গ্রামের ঘুপচি পাড়ায় গত রাতের ভোর থেকে বড় উত্তেজনা। বাঘ এসেছে। বাঘ ‘হ’-এ হালুম ডাক দিয়েছে …

  #গল্পের_বাঘ

              এঁদো গ্রামের ঘুপচি পাড়ায় গত রাতের ভোর থেকে বড় উত্তেজনা। বাঘ এসেছে। বাঘ ‘হ’-এ হালুম ডাক দিয়েছে কিনা সে সংশয় কারো মনে জায়গা পায়নি। মাঠের লাগোয়া দু-চার ঘরের মন ঠকঠকাচ্ছে। বেড়ার কোণে ঝোপের পাশে খচরমচর আওয়াজ এল কি না এলো— ‘ওরে বাবারে বাঘ’ বলে ঘরে ঢুকে সব খিল দিচ্ছে। মনে মনে গুষ্টি উদ্ধার চলছে তার, যে প্রথম দেখেছে এই বাঘ নামক প্রাণীটিকে।

              যে দেখেছে সে স্পষ্টই দেখেছে একটা ছিটেফোঁটা ইয়াআআআ লম্বা লেজ। মাঠের শেষে সন্ধ্যে ঘনিয়ে আসা খালপারের জঙ্গলে তার গায়ের একটু অংশ দেখাও গিয়েছিল। সে কি মসমস আওয়াজ!  শুনে টুনে শিড়দাঁড়া খাঁচা ছেড়ে বেড়িয়ে গেছে। হাত পা সামলে সুমলে মুন্ডু খানা হাতের ঝোলায় ভরে চোঁচা দে দৌড়! তবেই না প্রাণ নিয়ে বেঁচে আছে। এদিকে সবাই তাকেই দুষছে! যেন সে বাঘ তৈরি করে মাঠে ছেড়ে দিয়েছে। অপরাধের মধ্যে একটাই সে দেখে এসে গ্রামে বলেছে। সে তো গ্রামের লোকেদের ভালোর জন্যই। আজকাল একটু কারো ভালো করার জো নেই। হায়রে কলিকাল!  

              এই ২০১৮ সালে তো ঢেঁড়া পিটানোর ব্যবস্থা নেই, অগত্যা গ্রামের মোড়লরা মন্দিরে মসজিদে কানে কানে অমাইক- মাইক  আওয়াজে সাবধানবাণী ছড়িয়ে দিলেন যাতে কারো সখের প্রাণ বাঘের পেটে না পড়ে। দোকান পাট ঝাঁপ ফেলে দিল। সবথেকে সুবিধা পেল পড়ুয়ারা। বাঘমামার হানাদারিতে এক সন্ধ্যের পড়া মকুব। শুধু জানলা দিয়ে উঁকিঝুঁকি চলুক বাঘ বাড়ির দোরগোড়ায় এল কিনা দেখার জন্য।

           এখন রাতটুকু দুর্গাস্তোত্র,আল্লাহর একশ আট নাম জপে ভালোয় ভালোয় কেটে গেলেই হয়। সকাল হলেই পঞ্চায়েত অফিস, থানা পুলিশ সব জায়গায় খবর করতে হবে বাঘের ছলচাতুরী এড়িয়ে। সবাই হাতের কাছে ছোটোখাটো অস্ত্র, চাকু, ছুরি, কোদাল, বল্লম, বঁটি নিয়ে প্রস্তুত বাঘের মুখোমুখি হওয়ার জন্য। আজকের রাতটা এরকম দমবন্ধ হয়েই কাটবে। তাও ঘরে ঘরে ঘুম ঝিম ধরে।  

            এরপর! এরপর আবার কি! প্রত্যাশিত ভাবেই ভোর হবে। ঘরের লাগোয়া সবুজ ঝোপঝাড়ের বাগানে ঘসমস আওয়াজ শুনে ঘরকুনোর দল ‘বাঘ’ ‘বাঘ’ মন্ত্রে দিকবিদিক আছন্ন করে তুলবে। অতি কৌতূহলী কেউবা সেই ঝোপের ধারে এগিয়ে যাবে! ঝোপের ভেতর থেকে একটা পা বেরিয়ে আছে না! কেমন যেন চেনা চেনা ঠেকছে প্রাণীর ‘পা’টি। সবার হাঁ হাঁ উপেক্ষা করে ঝোপে ঝাঁপ দেবে সে কৌতূহলী বীর প্রাণ। রোমহর্ষক এপিসোডের শেষে হিড়হিড় করে কান ধরে ঝোপ থেকে টেনে বের করে আনবে প্রাণীটিকে। সবাই রোম খাড়া করে দেখবে হালকা হলুদের উপর বাদামী ছাপা চামড়ার একটি অসম্পূর্ণ গোরু তাদের সামনে দাঁড়িয়ে।  

Keep reading

More >