পুজোর আগের গপপো ১

  গাঙ্গুলীবাগানে একটা শপিং মলে কাজ করে সোমা। সকাল‌ নটার আগে ঢুকতে হয় ওদিকে শেষ হতে রাত নটা। কালিকাপুরের বাড়ি …

 

গাঙ্গুলীবাগানে একটা শপিং মলে কাজ করে সোমা। সকাল‌ নটার আগে ঢুকতে হয় ওদিকে শেষ হতে রাত নটা। কালিকাপুরের বাড়ি থেকে বেরোতে হয় সাড়ে সাতটায়। ভ্যান পেলে ভালো না পেলে পনের মিনিট হেঁটে স্টেশন। সাতটা পঞ্চাশের আপ ক্যানিং কিংবা আটটা দশের চাম্পাহাটি মাঝেরহাট লোকাল ধরে বাঘাযতীন স্টেশন তারপর হেঁটে। ট্রেন লেট করলে গড়িয়াতে নেমে যায় সোমা, তারপর বাস।

চা খাওয়ার জন্য দুবার দশ পনের মিনিটের ব্রেক আর দুপুরের খাবারের জন্য আধঘন্টা। বাকি সময়টা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কাস্টমারদের প্রশ্নের উত্তর দেওয়া। সঙ্গে কার পছন্দ কী বুঝে নিয়ে সেই মত কসমেটিক্স বিক্রির চেষ্টা। রোজ নতুন নতুন অফার, সে সম্পর্কে বাণীদি রেগুলার আপডেট করতে থাকে। বাণীদির পনের বছর হয়ে গেল এই ফিল্ডে।

সপ্তাহের মাঝের একদিন ছুটি থাকলেও, কোনো উৎসব অনুষ্ঠানে ছুটি নেই সোমার। ছাব্বিশে জানুয়ারি, পনেরই অগাস্ট, পয়লা মে, পয়লা বৈশাখ তো বটেই যেকোনো ছুটির দিনে শপিং মলে ভিড় বেশি হয়। কাজেই বিক্রিও বেশি। এক একটা কোম্পানির প্রডাক্টের উপরে আবার টার্গেট থাকে গছাতে পারলেই বোনাস।

যাদবপুর বাঘাযতীন গড়িয়া এলাকায় ভালো শপিংমল না থাকায় ওদের মলে ভালোই ভিড় হয়। সাউথ সিটির প্রায় সমান মানের জিনিস পাওয়া যায় এখানে তাই বিক্রি ভালোই। তবে ওর মত আরও মেয়েরা আছে, যদিও প্রত্যেকের ফ্লোর ভাগ করা আছে তবুও কাস্টমার ভাঙিয়ে নেওয়া চলতেই থাকে। সোমা এই নিয়ে বাণীদির কাছে অভিযোগ করেছে।

সারাদিন দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে পা ব্যথা হয়ে যায়। কিন্তু বসার একটুও সুযোগ নেই। অনেক মেয়ে ফাঁকি দিতে এদিক ওদিকে ঘুরে আসে। সিসিটিভি ক্যামেরায় সবাই নজরবন্দি। সোমা অবশ্য ফাঁকি দেয়না। মাস গেলে যে কটা টাকা পায় তাই দিয়েই কষ্ট করে তাদের সংসার চলে।

চাকরি পাওয়ার পর প্রথমে ওকে লেকটাউনের মলে পাঠানো হয়েছিল। তখন আরো আগে বেরোতে হয় আর ফিরতে আরো দেরি হত। যাতায়াতে খরচও হত অনেকগুলো টাকা। তিনমাস ধরে অনেক বলে শেষে গাঙ্গুলীবাগানে বদলি হয়েছে। বাইপাসের পাশেরটায় হলে ভালো হত, ওটা বাঘাযতীন স্টেশন থেকে হেঁটে আরও কাছে, বন্ধ হয় একঘন্টা আগে। তবু নাই মামা থেকে কানা মামা ভাল।

পুজো আসতে আর একটা মাস। সপ্তমী পর্যন্ত কাজ করে তিনদিন ছুটি। তারপর আবার কালীপুজো দিওয়ালির ভিড় শুরু হয়ে যাবে। এখন সারা বছর উৎসব আর সারা বছর মানুষের কেনাকাটা। এই মলে কাজ করে বলে অফারে বিশেষ ছাড়ে কিনতে পারে সোমা। কিন্তু তারও দাম আকাশছোঁয়া। তাই সোমা বোনাস পেলে গড়িয়া বাজার থেকে বাবার জন্য একটা জামা-প্যান্ট আর বোনের জন্য কুর্তি কিনবে। কসমেটিক্সও কিনবে ভেবে রেখেছে। শপিংমলে শাড়ি ভালো পাওয়া যায়না, তাই মাকে নিয়ে একদিন গড়িয়াহাট যেতে হবে।

নিজের জন্য কী কিনবে ভাবতে গিয়ে দেখে সারাদিন তো কোম্পানির দেওয়া ইউনিফর্ম পরেই কেটে যায়। টুকটাক ক্লিপ রুমাল কসমেটিক্স ট্রেন থেকেই কেনা হয়ে যায়। বাঘাযতীন থেকে ন’টা চারের ট্রেনটা লেট করায় আজকে ওটাই পেয়ে গেছে। নাহলে অন্যদিন নটা বাহান্নর ট্রেনটা পেলে বাড়ি ফিরতে সাড়ে দশটা বেজে যায়। আজ স্টেশনে ভ্যান নেই, তাই বাবা মা বোনের জন্য পুজোর পরিকল্পনা করতে করতে অন্ধকার রাস্তা দিয়ে বাড়ির দিকে হেঁটে ফিরতে থাকে সোমা।

সোমার পুজোর আগের গপপো এখানেই শেষ, অন্য একদিন আবার অন্য কারও পুজোর আগের গপপো নিয়ে ফিরে আসব…

Keep reading

More >